বয়ফ্রেন্ডের সামনে ছাত্রীকে দলবেঁধে বন্ধুদের ধর্ষণ, ভিডিও!


Published: 2019-03-18 13:58:18 BdST, Updated: 2019-07-21 15:22:31 BdST

টাঙ্গাইল লাইভ : খেলার মাঠের পাশে বসে ছাত্রীর সঙ্গে কথা বলছিলেন বয়ফ্রেন্ড। এসময় পাঁচ বন্ধু এসে বয়ফ্রেন্ডকে আটকে রেখে তার সামনেই ওই ছাত্রীকে ধর্ষণ করে। এসময় একজন তার মোবাইলে ধর্ষণের ভিডিও ধারণ করে রাখে। বিষয়টি প্রকাশ করলে ওই ভিডিও সামাজিক যোগাযোগের মাধ্যমে ছড়িয়ে দেয়ার ভয় দেখায় লম্পটরা। ঘটনাটি ঘটেছে গত ১১ মার্চ টাঙ্গাইলের সখীপুরের বহেড়াতৈল ইউপি এলাকায়। তবে এতোদিন বিচারের আশ্বাসে দ্বারে দ্বারে ঘুরেছেন ওই ছাত্রীর বাবা। এবার বাধ্য হয়ে তিনি বিষয়টি প্রকাশ করেছেন। গত শনিবার রাতে ওই ছাত্রীর বাবা বাদী হয়ে পাঁচজনকে আসামি করে সখীপুর থানায় ধর্ষণ ও পর্ণগ্রাফি আইনে মামলা করেন।

জানা গেছে, বাড়ি থেকে তিন কিলোমিটার দূরে একটি খেলার মাঠে বসে ছাত্রীর সঙ্গে গল্প করছিল বয়ফ্রেন্ড। এসময় ওই ছাত্রীর পরিচিত পাঁচ বন্ধু মিলে তিনটি মোটরসাইকেল নিয়ে তাদের জোর তুলে নিয়ে যায় উপজেলার বহেড়াতৈল রেঞ্জে কাকড়াজান বিটের একটি গহীন বনে। সেখানে নির্জন একটি খালি জায়গায় তাদের দুজনকে বিবস্ত্র করে চর-থাপ্পর মারে। একে অপরকে জড়িয়ে ধরতে বলে। না ধরায় আবারো চর-থাপ্পর মারে। এক পর্যায়ে তারা তাদর যৌন মিলনে লিপ্ত হতে চাপ দেয়। পরে সাদ্দাম হোসেন, মো. জালাল ও আশরাফুল ইসলাম বয়ফ্রেন্ডের সামনেই ছাত্রীকে ধর্ষণ করে। নজরুল ইসলাম ও আফাজ উদ্দিন ধর্ষণের সুযোগ না পেলেও তারা ঘটনাস্থলে উপস্থিত থেকে এসব ঘটনার ভিডিও ধারণ করে। এক পর্যায়ে ওই বয়ফ্রেন্ডের ডাক-চিৎকার শুরু করলে এক ব্যক্তি টর্চ লাইট নিয়ে এগিয়ে আসে। এসময় মোটরসাইকেল যোগে ওই পাঁচ বন্ধু পালিয়ে যায়।

বিষয়টি জানাজানি হলে গ্রাম্য সালিসে বিচারের চেষ্টা চলে। পরে কোনো বিচার না পেয়ে গত শনিবার রাতে মেয়েটির বাবা বাদী হয়ে পাঁচজনকে আসামি করে সখীপুর থানায় ধর্ষণ ও পর্ণগ্রাফি আইনে মামলা করেন।

সখীপুর থানার ওসি (তদন্ত) লুৎফুল কবির বলেন, একজনকে গ্রেফতার করা হয়েছে। বাকি আসামিদের ধরার চেষ্টা চলছে। ধর্ষণ ও বিবস্ত্র করার ভিডিও উদ্ধার করা হয়েছে বলে উল্লেখ করেন তিনি।

ঢাকা, ১৮ মার্চ (ক্যাম্পাসলাইভ২৪.কম)//সিএস

ক্যাম্পাসলাইভ২৪ডটকম-এ (campuslive24.com) প্রচারিত/প্রকাশিত যে কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা আইনত অপরাধ।