শেকৃবির ভর্তি পরীক্ষা শুক্রবার, জালিয়াত চক্র সক্রিয়


Published: 2018-12-06 11:58:57 BdST, Updated: 2018-12-13 06:26:49 BdST

শেকৃবি লাইভ: শেরেবাংলা কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ে (শেকৃবি) ২০১৮-১৯ শিক্ষাবর্ষের সম্মান শ্রেণিতে ভর্তি পরীক্ষা আগামী ৭ ডিসেম্বর, শুক্রবার অনুষ্ঠিত হবে। অনুষ্ঠিতব্য ভর্তি পরীক্ষাকে সামনে রেখে প্রতিবারের ন্যায় এবারেও ডিজিটাল জালিয়াতি চক্র বেশ সক্রিয়।

জালিয়াতি চক্র বিভিন্ন পরিচয়ে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমগুলোতে ভর্তিচ্ছুদের নানাভাবে প্রলোভন দেখিয়ে আসছে। এক্ষেত্রে প্রতিজনের কাছ থেকে ৩ থেকে ৫ লাখ টাকা পর্যন্ত দাবি করছে এ চক্রের সদস্যরা।

একাধিক নির্ভরযোগ্য সূত্র হতে জানা যায়, এ বছর ইলেক্ট্রনিক ডিভাইসের পাশাপাশি প্রবেশপত্রে ছবি পরিবর্তন করে বদলি পরীক্ষা দেওয়ার মাধ্যমে জালিয়াতি করার জন্য প্রস্তুতি নিচ্ছে একাধিক অসাধু চক্র।

১২ থেকে ২০ জনের একেকটি চক্রে শেকৃবির শিক্ষার্থীদের যোগসাজশে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়সহ রাজধানীর বিভিন্ন বিশ্ববিদ্যালয় ও কলেজের শিক্ষার্থীরা রয়েছে। জানা যায়, এ বছর ৬টি চক্র সক্রিয় রয়েছে। এসব চক্রে শেকৃবির শিক্ষার্থীরা সরাসরি ডিভাইস ব্যবহার কিংবা বদলি না দিলেও বাইরের বিশ্ববিদ্যালয় ও কলেজের জালিয়াতকারীদের সার্বিক আশ্রয় ও তথ্য দিয়ে সাহায্য করবে।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক শেকৃবির চতুর্থ বর্ষের সিরাজউদ্দৌলা হলের এক ছাত্র বলেন, জালিয়াতি চক্রের এক সদস্য তার এক প্রার্থীর সাথে যোগাযোগ করে তিন লাখ টাকার বিনিময়ে তাকে ডিভাইস ব্যবহার করে ভর্তি পরীক্ষায় চান্স পাইয়ে দেওয়ার নিশ্চয়তা দেন।

বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের কাছ থেকে জানা যায়, এ বছর পাবনা বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় এবং শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্বদ্যালয়ে ভর্তি জালিয়াতিতে শেকৃবির কয়েকজন শিক্ষার্থী আইন শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর হাতে আটক হয়।

এর মধ্যে ১৭ ব্যাচের এলাহী দানিয়েল এখন কাশিমপুর কারাগারে আটক রয়েছে বলে জানা গেছে। জালিয়াতির সাথে সম্পৃক্ত এসব শিক্ষার্থীদের সক্রিয়তায় আশঙ্কা করা হচ্ছে এই বছরও শেকৃবির ভর্তি পরীক্ষায় ব্যাপক জালিয়াতি হবে।

এ ব্যাপারে শেকৃবির ছাত্র পরামর্শ ও উপদেষ্টা বিভাগের পরিচালক ড. মো. মিজানুর রহমান ক্যাম্পাসলাইভকে বলেন, গতবারের ন্যায় এবারো প্রতিটি কেন্দ্রে মেটাল ডিটেক্টর ও আর্চওয়ে ব্যবহার করা হবে। ভিসি, প্রো-ভিসি ও ট্রেজারারের নেতৃত্বে চারটি ভাম্যমাণ আদালত পরীক্ষার কেন্দ্রগুলোতে সার্বক্ষণিক তৎপর থাকবে।

এ ছাড়াও তিনি আরো বলেন, পুলিশ ও র‌্যাবের গোয়েন্দা সংস্থা তৎপর থাকবে। কোথাও কোনো অসঙ্গতি দেখা দিলে তাৎক্ষণিক ব্যবস্থা নেওয়া হবে। শেকৃবির নিরাপত্তা কর্মকর্তা জাবের আলী ক্যাম্পাসলাইভকে, পুলিশ ও র‌্যাবের গোয়েন্দা বিভাগ শেকৃবির জালিয়াতি রোধে সক্রিয় আছে। সন্দেহভাজনদের নজরদারিতে রাখা হয়েছে।

 


ঢাকা, ০৬ ডিসেম্বর (ক্যাম্পাসলাইভ২৪.কম)//এমআই

ক্যাম্পাসলাইভ২৪ডটকম-এ (campuslive24.com) প্রচারিত/প্রকাশিত যে কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা আইনত অপরাধ।