কৌশল পরিবর্তন করে হামলা, ঢাবিতে ছাত্রলীগকে ধাওয়া


Published: 2018-07-22 22:17:44 BdST, Updated: 2018-12-19 20:23:56 BdST

লাইভ প্রতিবেদক : ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে কৌশল পরিবর্তন করে কোটা সংস্কারের দাবিতে আন্দোলনরত শিক্ষার্থীদের ওপর ফের হামলা চালিয়েছে ছাত্রলীগ। তবে তাদের এ কৌশল বুঝতে পেরে রুখে দাঁড়িয়েছে আন্দোলনরত শিক্ষার্থীরা। সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে হামলাকারী ছাত্রলীগ নেতা-কর্মীদের বিরুদ্ধে প্রতিরোধ গড়ে তোলে আন্দোলনকারীরা। এসময় ছাত্রলীগের নেতাকর্মীদের ধাওয়া করেন শিক্ষার্থীরা। এই প্রথম আন্দোলনকারীরা হামলার বিরুদ্ধে রুখে দাঁড়িয়েছে।

এর আগে রোববার বিকেলে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে প্রতিবাদ সমাবেশ শেষ করে ফেরার পথে আন্দোলনকারী শিক্ষার্থীদের ওপর হামলা চালায় ছাত্রলীগের নেতাকর্মীরা। সারাদেশে কোটা সংস্কার আন্দোলনকারীদের ওপর ছাত্রলীগের হামলা-মামলা এবং বিভিন্ন ক্যাম্পাসে ছাত্র-শিক্ষক নিপীড়নের প্রতিবাদে বিশ্ববিদ্যালয়ের রাজু ভাস্কর্যের পাদদেশে ছাত্র সমাবেশের আয়োজন করা হয়েছিল। ফেরার পথে তারা হামলার শিকার হন। এসময় কোটা আন্দোলনের বেশ কয়েকজন নেতাকর্মীকে পেটানো হয়। এক পর্যায়ে আন্দোলনকারীরা প্রতিরোধ গড়ে তুলে ছাত্রলীগকে ধাওয়া করে।

এদিকে ৫ দফার আলোকে কোটা সংস্কারের প্রজ্ঞাপন প্রকাশ না হওয়া পর্যন্ত আন্দোলন চালিয়ে যাবার ঘোষণা দিয়েছেন শিক্ষার্থীরা। দাবি আদায়ে আগামী ২৫ জুলাই দেশের সকল বিশ্ববিদ্যালয় ও কলেজে বিক্ষোভ সমাবেশের ঘোষণা দিয়েছেন তারা। কোটা সংস্কারের দাবিতে আন্দোলনরত শিক্ষার্থীদের প্ল্যাটফর্ম ‘বাংলাদেশ সাধারণ ছাত্র অধিকার পরিষদের যুগ্ম আহবায়ক বিন ইয়ামিন মোল্লাহ এ ঘোষণা দেন। অন্যদিকে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে ‘শিক্ষার পরিবেশ বিঘ্নিত করার অপপ্রয়াসের বিরুদ্ধে ‘সচেতন শিক্ষক সমাজ’ ব্যানারে মানববন্ধন করেছে বিশ্ববিদ্যালয়ের আওয়ামীপন্থী শিক্ষকরা।

কোটা সংস্কার করা, আন্দোলনে হামলাকারীদের বিচার, আটকৃতদের মুক্তি ও বিভিন্ন ক্যাম্পাসে ছাত্র শিক্ষকদের ওপর হামলার প্রতিবাদে রাজু ভাস্কর্যে বিকাল তিনটায় ছাত্র সমাবেশের ডাক দেয় আন্দোলনকারীরা। সমাবেশে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়সহ বিভিন্ন শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের শিক্ষার্থীরা অংশ নেন। সমাবেশে শিক্ষার্থীরা নিরাপদ ক্যাম্পাস, কোটা সংষ্কার, হামলাকারীদের বিচার ও কোটা আন্দোলনের আটককৃতদের মুক্তির দাবি করেন। এসময় সামবেশের আশে পাশে ছাত্রলীগের নেতাকর্মীরা অবস্থান নেন। সাড়ে পাঁচটার দিকে পরবর্তী কর্মসূচী ঘোষণা করেন যুগ্ম আহবায়ক বিন ইয়ামিন মোল্লা। এসময় সাধারণ ছাত্র অধিকার পরিষদের যুগ্ম আহবায়ক মো আতাউল্লাহ, সোহরাব হোসেন, রাতুল সরকার উপস্থিত ছিলেন।

এদিকে সমাবেশ শেষে ফেরার পথে আন্দোলনকারীদের ওপর হামলা চালায় ছাত্রলীগের নেতাকর্মীরা। সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে এক আন্দোলনকারীকে মারধর করেন তারা। প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, কর্মসূচী শেষ করে আন্দোলনকারীরা টিএসসির পাশে সোহরাওয়ার্দী উদ্যানের ভেতর দিয়ে যাওয়ার সময় হামলা চালায় ছাত্রলীগের নেতাকর্মীরা। কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক দিদার মো. নিজামুল হকের নেতৃত্বে জিয়া হল শাখা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক আব্দুল্লাহ আল মাসুদ লিমনসহ বিভিন্ন হল শাখা ছাত্রলীগের নেতাকর্মীরা এতে অংশ নেন। এসময় ঘটনাস্থলে অন্তত ১৫ জন কেন্দ্রীয় নেতা ও ২০ জনের মতো বিশ্ববিদ্যালয় পর্যায়ের নেতাকেও দেখা যায়। অন্যদিকে হামলা শেষে ফেরার পথে আন্দোলনকারীরা সংগঠিত হয়ে ছাত্রলীগের নেতাকর্মীদের ধাওয়া দেয়। এসময় তারা জিয়া হল ছাত্রলীগের কর্মসূচী ও পরিকল্পনা বিষয়ক সম্পাদক হাসিবুল হোসেন শান্তকে অবরুদ্ধ করে এবং কয়েকটি কিল-ঘুষি দেয়। পরে তিনি ঘটনাস্থল থেকে দৌঁড়ে পালায়।

আন্দোলনকারীরা জানান, সমাবেশ শেষে আন্দোলনের যুগ্ম আহবায়ক সোহরাব হোসেন, রাতুল সরকার ও নিয়াজী একটি সিএনজি অটোরিকশা করে চলে যায়। আরেকটি ট্যাক্সি ক্যাবে করে যান আতাউল্লাহ ও বিন ইয়ামিন মোল্লা। এসময় ছাত্রলীগের নেতাকর্মীরা মোটর সাইকেল নিয়ে সিএনজি ও ট্যাক্সি ক্যাবের পিছু নেয়। একপর্যায়ে রাজধানীর কাঁটাবন এলাকায় সিএনজি থামিয়ে সোহরাব, রাতুল ও নিয়াজীকে মারধর করেন তারা। এসময় কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগের কর্মসূচী ও পরিকল্পনা বিষয়ক উপ-সম্পাদক মুরাদ হায়দার টিপু, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক সাইদুর রহমান উজ্জ্বল, জহুরুল হক হল শাখা ছাত্রলীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক আমির হামজাসহ আটদশ জনকে মারধর করতে দেখা যায়।


ছবিতে হামলার সময় এক ছাত্রলীগ নেতাকে ধাওয়া দিয়ে আটক করেন আন্দোলনরত শিক্ষার্থীরা

ঢাকা, ২৩ জুলাই (ক্যাম্পাসলাইভ২৪.কম)//সিএস

ক্যাম্পাসলাইভ২৪ডটকম-এ (campuslive24.com) প্রচারিত/প্রকাশিত যে কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা আইনত অপরাধ।