ভালোবাসার ভয়ংকর পরিণতি, এই ছাত্রীটির ভাগ্যে কী ঘটেছে!


Published: 2018-07-21 21:59:52 BdST, Updated: 2018-08-18 09:15:00 BdST

মুন্সীগঞ্জ লাইভ: সদা হাস্যেজ্জল ছিলেন ঐশী। এঘর ওই ঘর মাতিয়ে রাখতেন তিনি। পরিবারের সবার কাছেই ছিলেন চোখের মণি। আদুরে ওই ছাত্রীটি সবাইকে কাঁদিয়ে চলে গেছে না ফেরার দেশে।

ভালোবাসর ভয়ংকর পরিণতি হয়েছে তার। শয়নকক্ষ থেকে তার ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার করা হয়েছে। তবে সে আত্মহত্যা করেছে নাকি তাকে হত্যা করা হয়েছে এনিয়ে রহস্য তৈরি হয়েছে। তড়িঘড়ি করে ময়না তদন্ত ছাড়াই তার লাশ দাফন করায় তার মৃত্যু নিয়ে রহস্য তৈরি হয়েছে।

ঐশীর সহপাঠীদের অভিযোগ বিয়ে দিয়ে ওই ছাত্রীর চঞ্চলতাকে থামিয়ে দেয়া হয়েছে। প্রেম করে বিয়ে করেছে ওই ছাত্রী তবে বিয়ের পরই তার স্বামী বদলে যেতে থাকে। প্রথমে তার পড়াশোনা বন্ধ করে দেয়া হয়। পরে বান্ধবীদের সঙ্গেও যোগাযোগ বন্ধ করে দেয়া হয়।

ভালোবাসার টানে এসব কিছুই নিরবে সহ্য করেছে ঐশী। তবে বিপত্তিটা বেঁধেছে যখন সে শুনতে পায় তার স্বামী পরকীয়ায় মেতেছে। এবিষয়টি মেনে নিতে পারেনি ঐশী। এনিয়ে স্বামী সীমান্তের সঙ্গে প্রায়ই ঝগড়া হতো ঐশীর। এনিয়ে ফোনে কথা বলার পরই লাশ উদ্ধার করা হয় ঐশীর।

জানা গেছে, মুন্সীগঞ্জ সিরাজদিখান উপজেলার কেয়াইন ইউনিয়নের মজিদপুর গ্রামের প্রাণবন্ত স্কুলছাত্রী ঐশী পিরিজের লাশ উদ্ধার করা হয় শুক্রবার (২০ জুলাই)। তার বাবার বাড়িতে শয়নকক্ষ থেকে তার লাশ উদ্ধার করা হয়। শনিবার ময়নাতদন্ত ছাড়াই তার লাশ দাফন করা হয়।

ঐশী পিরিজের মা মঞ্জুরী পিরিজ বলেন, দেড় বছর আগে কেয়াইন ইউনিয়নের বড়ৈহাজী গ্রামের হেবল বটলের ছেলে সীমান্ত বটলের সঙ্গে আমার বড় মেয়ে ঐশী পিরিজের এনগেইজড হয়। ভালোবাসার সম্পর্ক মেনে নিয়ে তাদের বাগদান করা হয়। শুক্রবার সকালে আমি আমার বাবার বাড়ির ধর্মীয় অনুষ্ঠানে চলে গেলে ঐশী পরে যাবে বলে থেকে যায়। বেলা দেড়টাও ঐশী সেখানে অনুষ্ঠানে না গেলে আমি বাড়িতে এসে দেখি ঐশী ঘরের ফ্যানের সঙ্গে ঝুলে আছে।

নিহতের ছোট বোন ঐদ্রিলা পিরিজ বলেন, ফোনে সীমান্তের সঙ্গে কথা কাটাকাটি হযেছে। প্রতিবেশী জ্যানি জানান ঐশী ও সীমান্তের মধ্যে ভালোবাসায় তৃতীয় কোন মেয়ে চলে আসায় এনিয়ে ঝামেলা সৃষ্টি হয়েছিল। ঐশীর ভাগ্যে কী ঘটেছে জানি না।

ঐশীর স্বামী সীমান্ত বলেন, ঐশীর সাথে আমার প্রায় দের বছর আগে বিয়ে ঠিক হয়েছে। আমি জানিনা কেন ঐশী আত্মহত্যা করেছে।

সিরাজদিখান থানার ওসি (তদন্ত) মো: হেলালউদ্দিন বলেন, সিরাজদিখান থানায় একটি অপমৃত্যু মামলা হয়েছে। লাশের শরীরে কোন আঘাতের চিহ্ন না থাকায় ফোনের অনুমতি দেওয়া হয়েছে।

 

ঢাকা, ২১ জুলাই (ক্যাম্পাসলাইভ২৪.কম)//এমআই

ক্যাম্পাসলাইভ২৪ডটকম-এ (campuslive24.com) প্রচারিত/প্রকাশিত যে কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা আইনত অপরাধ।