বঙ্গবন্ধু মেডিকেলে ঢাবি শিক্ষার্থীদের অগ্রাধিকার!


Published: 2018-01-10 12:49:47 BdST, Updated: 2018-06-23 06:33:13 BdST

লাইভ প্রতিবেদক : বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয় হাসপাতালে ডাক্তার দেখানোর ক্ষেত্রে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের অগ্রাধিকার দেয়া হবে বলে জানানো হয়েছে। হাসপাতালের পরিচালক আব্দুল্লাহ আল হারুন ওই অঙ্গীকার করেছেন। মঙ্গলবার বিকেলে ওই হাসপাতালের টিকিট কাউন্টারে অসম্মানজনক আচরণের প্রতিবাদ করায় ঢাবির দুই শিক্ষার্থীকে মারধর করে সেখানে দায়িত্বরত আনসার সদস্যরা। হাসপাতালের বহির্বিভাগ-২ এর সামনে অনাকাঙ্ক্ষিত এ ঘটনাটি ঘটে। এঘটনার পর হাসপাতালের পরিচালক অঙ্গীকার করেন এখন থেকে ঢাবির শিক্ষার্থীদের অগ্রাধিকার দেয়া হবে।

হাসপাতালের পরিচালক আব্দুল্লাহ আল হারুন বলেন, আগামী দুই সপ্তাহের মধ্যে সিসিটিভি ফুটেজ বিশ্লেষণ করে জড়িতদের বিচারের আওতায় আনা হবে। পাশাপাশি তিনি এও নিশ্চয়তা দেন যে, এখন থেকে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের টিকেট পাওয়ার ক্ষেত্রে অগ্রাধিকার দেওয়া হবে এবং সব রোগীকে আনসার সদস্যদের ‘স্যার’ সম্বোধন করতে হবে।

জানা গেছে, নিরাপত্তাকর্মী আনসার সদস্যদের হাতে নির্যাতিত ওই দুই শিক্ষার্থী হলেন গণযোগাযোগ ও সাংবাদিকতা বিভাগের চতুর্থ বর্ষের ছাত্র মনোয়ার হোসেন মান্না ও আশিক আব্দুল্লাহ অপু। এদের ভেতর প্রথম জন চ্যানেল আই এবং অপর জন ইংরেজি দৈনিক ডেইলি স্টারের ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিবেদক।

প্রত্যক্ষদর্শী সূত্রে জানা যায়, মঙ্গলবার বিএসএমএমইউ'তে চিকিৎসা সেবা নিতে যাওয়া ওই দুই শিক্ষার্থী বহির্বিভাগের টিকেট কাউন্টারের সামনে ডার্মাটোলজির টিকেট কোথায় পাওয়া যাবে এ ব্যাপারে তথ্য নিতে যান। এসময় একজন আনসার সদস্য তাদের একজনের জামা টেনে ধরে এবং ‘তুই’ সম্বোধন করে বলে, পেছনে গিয়ে দাঁড়া!

তৎক্ষণাত এভাবে লাঞ্ছিত করার কারণ জানতে চান মান্না এবং অপু। এ নিয়ে তার সাথে উত্তপ্ত বাক্য বিনিময় চলাকালে আরেকজন আনসার সদস্য এসে ছাত্রদের গালিগালাজ করতে থাকে। এর এক পর্যায়ে তাদের একজন মান্নার মুখে ঘুষি মেরে বসে এবং হাসপাতাল থেকে বের করে দেয়।

লাঞ্ছিত হবার এমন খবর পেয়ে মান্না-অপু'র উত্তেজিত সহপাঠীরা সেখানে উপস্থিত হলে আনসার সদস্যদের সঙ্গে তাদের হাতাহাতি হয়। এক পর্যায়ে হাসপাতালের কয়েকশ কর্মচারী এবং আনসার সদস্যরা মিলে ওই শিক্ষার্থীদের ওপর হামলা করে। এ সময় আহত মান্না ও অপুকে আনসার সদস্যরা পুনরায় ‘বন্দুকের নল’ দিয়ে পেটায়। তাদের মাথা ও ঘাড়ে আঘাতের চিহ্ন পাওয়া গেছে। পরে বিএসএমএমইউ'র প্রক্টর ডা. মো. হাবিবুর রহমান দুলাল এসে পরিস্থিতি শান্ত করেন।

ঢাকা, ১০ জানুয়ারি (ক্যাম্পাসলাইভ২৪.কম)//সিএস

ক্যাম্পাসলাইভ২৪ডটকম-এ (campuslive24.com) প্রচারিত/প্রকাশিত যে কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা আইনত অপরাধ।