পাঁচ শিক্ষার্থীর ভয়ঙ্কর পথে যাত্রা...


Published: 2020-05-31 22:17:57 BdST, Updated: 2020-07-09 07:46:16 BdST

লাইভ প্রতিবেদক: ওরা পা রাখলো ভয়ঙ্কর পথে। আর কোন দিন ফিরবে না তাদের পরিবারে। যাবে না সহপাঠিদের আড্ডায়। ডাকবেনা মা-বাবাকে। সব কিছু ছাপিয়ে ওরা চলে গেল না ফেরার দেশে। এসএসসি পরীক্ষায় ফেল করায় ঝিনাইদহে ছাত্র, শায়েস্তাগঞ্জে ছাত্রী, শ্রীপুরে ছাত্র, ঠাকুরগাঁওয়ের হরিপুরে এক ছাত্রী ও লালমনিরহাটে এক ছাত্রী বেঁচে নিয়ে ভয়ঙ্কর পথ। করেছে আত্মহত্যা। বিস্তারিত আমাদের প্রতিনিধিদের পাঠানো প্রতিবেদনে উল্লেখ করা হয়েছে।

শায়েস্তাগঞ্জ (হবিগঞ্জ) প্রতিনিধি জানান, জেলার লাখাই উপজেলায় এসএসসি পরীক্ষায় ফেল করায় মণি আক্তার (১৮) নামে এক ছাত্রী আত্মহত্যা করেছে। রোববার (৩১ মে) দুপুর দেড়টার দিকে এ ঘটনা ঘটে। মণি আক্তার লাখাই উপজেলার বেগুনাই গ্রামের জামাল মিয়ার মেয়ে। সে মাদনা এসইএসডি মডেল উচ্চ বিদ্যালয় থেকে এ বছর এসএসসি পরীক্ষায় অংশ নিয়েছিল।

পারিবারি সূত্রে জানা যায়, সকালে এসএসসি ও সমমানের পরীক্ষার ফল প্রকাশিত হয়। ফলাফল দেখার পর মণি ফেল করায় রাগে ও অপমানে বিষপান করে। পরে বিষের যন্ত্রণায় ছটফট করতে থাকলে পরিবারের লোকজন বুঝতে পেরে তাকে উদ্ধার করে হবিগঞ্জ সদর আধুনিক হাসপাতালে নিয়ে যায়। সেখানে কর্তব্যরত চিকিৎসক মণিকে মৃত ঘোষণা করেন। লাখাই থানার ওসি সাইদুল ইসলাম বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

শ্রীপুর (গাজীপুর) প্রতিনিধি জানান, গাজীপুরের শ্রীপুর উপজেলার গোসিঙ্গা ইউনিয়নের নারায়নপুর গ্রামে এসএসসি পরীক্ষায় অকৃতকার্য হওয়ায় মানছুরা (১৬) নামের এক ছাত্রী আত্মহত্যা করেছে। নিহত মানছুরা সৌদি প্রবাসী হান্নান মিয়ার মেয়ে। রোববার বেলা ১২টার দিকে নিজ ঘরে ফাঁস দিয়ে সে আত্মহত্যা করে। মানছুরা ওই গ্রামের হান্নান মিয়ার মেয়ে। শ্রীপুর থানা পুলিশের এসআই মো. আলাউদ্দিন জানান, মানছুরা লতিফপুর বালিকা উচ্চ বিদ্যালয় থেকে মানবিক বিভাগ থেকে এসএসসি পরীক্ষায় অংশ নেয়।

রোববার ঘোষিত ফলাফলে মানছুরা অকৃতকার্য হয়। এরপর ফল ঘোষণার পরপরই সে তার ঘরে ফাঁস দিয়ে আত্মহত্যা করে। এসময় তার মা মাঠ থেকে গরু আনতে গিয়েছিলেন। বাড়িতে ফিরে ঘরে মেয়ের লাশ ঝুলতে দেখে তিনি চিৎকার শুরু করেন। পরে এলাকাবাসী লাশ উদ্ধার করে। খবর পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থলে পৌঁছে মরদেহের সুরতহাল প্রতিবেদন করে। পরে স্বজনদের আবেদনের প্রেক্ষিতে ময়নাতদন্ত ছাড়াই মরদেহ স্বজনদের কাছে হস্তান্তর করেছে।

এদিকে শরীয়তপুর প্রতিনিধি জানান, জলোর গোসাইরহাট উপজেলায় মোছাদিমা রহমান বর্ষা (১৭) নামে এক কিশোরী জিপিএ-৫ না পেয়ে ফ্যানের সঙ্গে ফাঁস দিয়ে আত্মহত্যা করেছে। রোববার উপজেলার গোসাইরহাট ইউনিয়নের বটনা গ্রামে এ ঘটনা ঘটে।

মোছাদিমা রহমান বর্ষা উপজেলার গোসাইরহাট ইউনিয়নের বটনা গ্রামের আব্দুল মতিন সরকারের মেয়ে। সে ইদিলপুর সরকারি পাইলট উচ্চ বিদ্যালয় থেকে এ বছর এসএসসি পরীক্ষায় অংশগ্রহণ করে জিপিএ- ৪.৫০ পেয়েছে। এরপরও জিপিএ-৫ না পেয়ে আত্মহত্যা করল বর্ষা।

ইদিলপুর সরকারি পাইলট উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক এমদাদুল হক বলেন, বর্ষা পড়ালেখায় বেশ ভালো ছিল। বিজ্ঞান বিভাগ থেকে এসএসসি পরীক্ষা দিয়েছিল সে। রোববার প্রকাশিত এসএসসি ফলাফলে দেখা যায়, বর্ষা তিনটি বিষয়ে ৭৮ নম্বর পায়। আর সবগুলো বিষয়ে ৮০ ওপর নম্বর পেয়েছে। অল্পের জন্য জিপিএ-৫ পায়নি সে। তারপরও আত্মহত্যা করেছে সে।

গোসাইরহাট থানার ওসি মোল্লা সোহেব আলী বলেন, বেলা পৌনে ১১টার দিকে নিজ ঘরে আত্মহত্যা করেছে বর্ষা। পরে ঘটনাস্থলে গিয়ে জানতে পারি বর্ষা এবারের এসএসসি পরীক্ষায় জিপিএ-৫ পায়নি। এ কারণে সে আত্মহত্যা করেছে।

ঝিনাইদহ প্রতিনিধি জানান, জেলার মহেশপুর উপজেলার শাহাবাজপুর গ্রামে এসএসসি পরীক্ষায় সি গ্রেড পাওয়ায় আত্মহত্যা করেছে পিয়ারুল ইসলাম (১৭) নামের এক শিক্ষার্থী। ৩১মে এ ঘটনা ঘটে। সে ওই গ্রামের ঝন্টু মন্ডলের ছেলে এবং স্থানীয় খালিশপুর বহুমুখী মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের মানবিক বিভাগের ছাত্র ছিল। আগে এই শিক্ষার্থী স্কুলের এসএসসি টেস্ট পরীক্ষায় ৫টি বিষয়ে অকৃতকার্য হয়েছিল।

মহেশপুর থানার ওসি (তদন্ত) রাশেদুল আলম জানান, পিয়ারুল ইসলাম যশোর শিক্ষা বোর্ডের অধীনে খালিশপুর বহুমুখী মাধ্যমিক বিদ্যালয় থেকে এবার এসএসসি পরীক্ষা দিয়েছিল। ফলাফল প্রকাশের পর সে জানতে পারে সি গ্রেড (২.৭৮) পেয়ে কৃতকার্য হয়েছে।

এরপর সে কাউকে কিছু না জানিয়ে বাড়ি থেকে বের হয়ে যায়। পরে অনেক খোঁজাখুঁজির পর বাড়ির পার্শ্ববর্তী মেহগনি বাগানের গাছে তার ঝুলন্ত মরদেহ পাওয়া যায়। ওই সময় খবর পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থলে পৌঁছে মৃতদেহটি উদ্ধার করে।

এদিকে ঠাকুরগাঁও প্রতিনিধি জানান, জেলার হরিপুর উপজেলার হরিপুর ইউনিয়নে রোববার লিমা আক্তার (১৬) নামে এক শিক্ষার্থী ফাঁস দিয়ে আত্মহত্যা করেছে। হরিপুর থানা পুলিশের ওসি মো. আমিরুজ্জামান বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন। সে ওই ইউনিয়নের তিনুয়া গ্রামের জহিরুল ইসলামের মেয়ে এবং হরিপুর দ্বিমুখী বালিকা উচ্চ বিদ্যালয় থেকে এসএসসি পরীক্ষায় অংশ নেয়।

উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের চিকিৎসক কবিরুল ইসলাম জানান, দুপুরে একজন শিক্ষার্থী ফাঁস দিয়ে আত্মহত্যা করেছে। আরেক শিক্ষার্থী কীটনাশক পান করে আত্মহত্যার চেষ্টা করেছে। তার অবস্থা আশঙ্কাজনক হওয়ায় উন্নত চিকিৎসার জন্য তাকে দিনাজপুর এম আব্দুর রহিম মেডিকেল কলেজ হাসাপাতালে পাঠানো হয়। লিমার বাবা জহিরুল ইসলাম জানান, সকালে থেকে আমি ও আমার স্ত্রী মাঠে ধান কাটছিলাম। দুপুরে বাড়িতে এসে দেখি মেয়ে ফাঁস দিয়েছে।

হরিপুর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান আতাউর রহমান জানান, ফেল করায় একই ইউনিয়নের বালিহাড়া গ্রামের আরেক শিক্ষার্থী কীটনাশক পান করে আত্মহত্যার চেষ্টা করেছে। তাকে উদ্ধার করে হরিপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে আনলে তাকে দিনাজপুর এম আব্দুর রহিম মেডিকেল কলেজ হাসাপাতালে পাঠানো হয়েছে।

হবিগঞ্জ প্রতিনিধি জানান, হবিগঞ্জের লাখাইয়ে মাধ্যমিক স্কুল সার্টিফিকেট (এসএসসি) ও সমমানের পরীক্ষায় কৃতকার্য না হওয়ায় পরশমনি নামে এক ছাত্রী আত্মহত্যা করেছে। রোববার দুপুর দেড়টার দিকে এ ঘটনা ঘটে। আত্মহত্যাকারী পরশমনি লাখাই উপজেলার বেগুনাই গ্রামের জামাল উদ্দিনের মেয়ে। সে মাদনা এসইএসডি মডেল উচ্চ বিদ্যালয় থেকে এ বছর এসএসসি পরীক্ষায় অংশ নেয়।

পারিবারিক সূত্রে জানা যায়, রোববার সকালে এসএসসি ও সমমানের পরীক্ষার ফল প্রকাশিত হয়। পরীক্ষায় অকৃতকার্য হলে পরশমনি বিষপানে আত্মহত্যার চেষ্টা করে। পরে পরিবারের লোকজন তাকে উদ্ধার করে হবিগঞ্জ সদর আধুনিক হাসপাতালে নিয়ে আসে। সেখানে নিয়ে গেলে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন।

ঢাকা, ৩১ মে (ক্যাম্পাসলাইভ২৪.কম)//এআইটি

ক্যাম্পাসলাইভ২৪ডটকম-এ (campuslive24.com) প্রচারিত/প্রকাশিত যে কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা আইনত অপরাধ।