চার দিনের রিমান্ড মঞ্জুর সেলিম প্রধান ও সহযোগীদের


Published: 2019-10-03 14:52:07 BdST, Updated: 2019-10-21 16:36:30 BdST

লাইভ প্রতিবেদকঃ মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ আইনের মামলায় অনলাইন জুয়া ও ক্যাসিনো ব্যবসার মূল হোতা সেলিম প্রধানসহ তাঁর দুই সহযোগীকে চার দিনের রিমান্ডের অনুমতি দিয়েছেন আদালত। সেলিম প্রধানের দুই সহযোগী হলেন আক্তারুজ্জামান ও রোকন।

বৃহস্পতিবার ঢাকা মহানগর হাকিম মইনুল ইসলাম শুনানি শেষে এ রিমান্ড মঞ্জুর করেছেন।
আদালতের সাধারণ নিবন্ধন কর্মকর্তা শেখ রকিবুর রহমান ক্যাম্পাস লাইভকে জানান,

বুধবার তিন আসামিকে মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ আইনের মামলায় গ্রেপ্তার দেখিয়ে রিমান্ডে নেওয়ার আবেদন করেন মামলার তদন্ত কর্মকর্তা গুলশান থানার পরিদর্শক আমিনুল ইসলাম।

ওই দিন আদালত সেলিম প্রধানসহ তিনজনকে গ্রেপ্তার দেখিয়ে বৃহস্পতিবার রিমান্ড বিষয়ে শুনানির দিন ধার্য করেন। শুনানি শেষে আদালত সেলিম প্রধান ও তাঁর দুই সহযোগীকে চার দিন করে রিমান্ডের মঞ্জুরি দেন।

আদালত সূত্রে জানা যায়, গত ৩০ সেপ্টেম্বর থাই এয়ারওয়েজের ফ্লাইটে সেলিম প্রধানের ব্যাংকক যাওয়ার কথা ছিল। টিজি ৩২২ নম্বর ফ্লাইট থেকে তাঁকে নামানো হয়। সেলিম প্রধানকে আটক করা হয়। আটকের পর সেলিম প্রধানের গুলশান ও বনানীর অফিস এবং বাসায় অভিযান চালিয়ে ২৯ লাখ ৫ হাজার ৫০০ টাকা,

৭৭ লাখ ৬৩ হাজার টাকার সমপরিমাণ ২৩টি দেশের মুদ্রা, ও দুটি হরিণের চামড়া ১২টি পাসপোর্ট, ১৩টি ব্যাংকের ৩২টি চেক, ৪৮ বোতল বিদেশি মদ, একটি বড় সার্ভার, চারটি ল্যাপটপ, জব্দ করে র‌্যাব। হরিণের চামড়া উদ্ধারের ঘটনায় বন্য প্রাণী সংরক্ষণ নিরাপত্তা আইনে তাঁকে ছয় মাসের কারাদণ্ড দিয়েছেন ভ্রাম্যমাণ আদালত।

অর্থ এবং মাদক পাওয়ার ফলে সেলিম প্রধানের বিরুদ্ধে গতকাল গুলশান থানায় র‍্যাবের পক্ষ হতে মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ আইন ও মানিলন্ডারিং আইনে দুটি মামলা করা হয়েছে।

বাংলাদেশ ফিন্যান্সিয়াল ইন্টেলিজেন্স ইউনিট (বিএফআইইউ) গত মঙ্গলবার সব ব্যাংকের কাছে পাঠানো চিঠিতে এ নির্দেশনা দিয়েছে। সেলিম প্রধানের সব ব্যাংক হিসাবের লেনদেন স্থগিত করেছে বাংলাদেশ ব্যাংক। এতে করে তাঁর নিজের ও প্রতিষ্ঠানের হিসাব থেকে আর কোনো টাকা উত্তোলন করা যাবে না।

সেলিম প্রধানের জাপান-বাংলাদেশ সিকিউরিটি প্রিন্টিং অ্যান্ড পেপারসে বিভিন্ন ব্যাংকের চেক বই ছাপা হয়। এর পাশাপাশি বিভিন্ন শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের সার্টিফিকেট ও অফিসের নথিপত্রও ছাপানো হয়ে থাকে।

সেলিমের কাছে ব্যাংকের পাওনা প্রায় ১০০ কোটি টাকা। তাঁর এই প্রতিষ্ঠান রূপালী ব্যাংকের শীর্ষ ঋণখেলাপির একটি। ২০১৮ সালে ঋণটি পুনঃ তফসিল করা হয়।

বাঁকি যারা রিমান্ডে রয়েছেন:
সেলিম প্রধান ছাড়াও যুবলীগ নেতা এস এম গোলাম কিবরিয়া শামীম ওরফে জি কে শামীম ২য় দফায় মাদক ও অস্ত্র মামলায় ৯ দিনের রিমান্ডে আছে।মাদক আইনে করা মামলায় মোহামেডান স্পোর্টিং ক্লাব লিমিটেডের ডিরেক্টর ইনচার্জ ও বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ডের পরিচালক (বিসিবি) লোকমান হোসেন ভূঁইয়া,

কলাবাগান ক্রীড়াচক্রের সভাপতি শফিকুল আলম ফিরোজ এবং রাজধানীর তেজগাঁওয়ে ফু-ওয়াং ক্লাব থেকে গ্রেপ্তার তিন কর্মচারী ক্যাশিয়ার জাহিদুর রহমান মিয়া। কর্মচারী চঞ্চল পালমা ও জেভিআর জেরি ডি কস্তা আট দিনের রিমান্ডে রয়েছেন। মাদক এবং অস্ত্র মামলায় ঢাকা মহানগর যুবলীগ দক্ষিণের সাংগঠনিক সম্পাদক থেকে বহিষ্কার হওয়া খালেদ মাহমুদ ভূঁইয়া দ্বিতীয় দফায় ১০ দিনের রিমান্ডে রয়েছেন।

ঢাকা, ০৩ অক্টোবর (ক্যাম্পাসলাইভ২৪.কম)//এমজেড

ক্যাম্পাসলাইভ২৪ডটকম-এ (campuslive24.com) প্রচারিত/প্রকাশিত যে কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা আইনত অপরাধ।