গর্ভে সন্তান নিয়েই নুসরাত কিলিং মিশনে অংশ নেন এই ছাত্রী!


Published: 2019-04-22 17:49:16 BdST, Updated: 2019-05-19 16:50:30 BdST

 

ফেনী লাইভ : কামরুন্নাহার মনি। ফেনীর সোনাগাজীতে নুসরাত জাহান রাফি হত্যার অন্যতম আসামি তিনি। হত্যার সময় শম্পা বলে ডাক দেয়া সেই বোরকাওয়ালীই কামরুননাহার মনি। বিষয়টি নিশ্চিত হয়েছে আইন শৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্যরা। মনি তার গর্ভে সন্তান রেখেই নুসরাত হত্যার মিশনে যোগ দেন বলে স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দিয়েছেন। তার অনাগত সন্তানের বয়স পাঁচ মাস। আদালতে ১৬৪ ধারায় জবানবন্দিতে মনি তার গর্ভে সন্তানের বয়স পাঁচ মাস বলে জানিয়েছেন। মনি বর্তমানে কারাগারে রয়েছে। জবানবন্দির ব্যাপারে সাংবাদিকদের ব্রিফ করেন পুলিশ ব্যুরো অব ইনভেস্টিগেশনের (পিবিআই) এর চট্টগ্রাম বিভাগের স্পেশাল পুলিশ সুপার মো. ইকবাল।

তিনি বলেন, নুসরাত জাহান রাফি হত্যার কিলিং মিশিনে সরাসরি জড়িত ছিল কামরুন নাহার। সে নুসরাতের বুকসহ শরীর চেপে ধরে এবং বোরকার ব্যবস্থা করে দেন। উম্মে সুলতানা নুসরাতের পায়ে বেঁধে চলে যাওয়ার সময় মনি তাকে শম্পা বলে ডাকে। এই শম্পা দেয়া নামটি পপি ও মনির দেয়া নাম। এই কিলিং মিশনে আর কোনো ছদ্ম নাম ব্যবহার হয়নি। কয়েক ঘন্টাব্যাপী এ স্বীকারোক্তিমূলক জবাবনন্দিতে মনি হত্যাকান্ডর ব্যাপারে আরও চাঞ্চল্যকর অনেক তথ্য দিয়েছে।

এর আগে কামরুন নাহার মনিকে ১৫ এপ্রিল তারিখ সোনাগাজী থেকে গ্রেফতার করা হয়। ১৭ এপ্রিল একই আদালতে তাকে ৫ দিনের রিমান্ড দেয়া হয়।

উল্লেখ্য, গত ৬ এপ্রিল নুসরাতকে আগুনে পুড়িয়ে হত্যা চেষ্টার দিন সরাসরি কিলিং মিশনে অংশ নেয় পাঁচ জন। তারা হচ্ছে মাদ্রাসার ছাত্রলীগ নেতা শাহাদাত হোসেন শামীম, জোবায়ের হোসেন, জাবেদ হোসেন, কামরুন নাহার মনি ও উম্মে সুলতানা পপি।
এ পর্যন্ত ৮জন আদালতে স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দিয়েছেন তারা হচ্ছে, শাহাদাত হোসেন শামীম, নুর উদ্দিন, আবদুর রহীম শরিফ, হাফেজ আবদুল কাদের, উম্মে সুলতানা পপি, সাইফুর রহমান জোবায়ের, জাবেদ হোসেন ও কামরুন নাহার মনি ।

ঢাকা, ২২ এপ্রিল (ক্যাম্পাসলাইভ২৪.কম)//আরএইচ

ক্যাম্পাসলাইভ২৪ডটকম-এ (campuslive24.com) প্রচারিত/প্রকাশিত যে কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা আইনত অপরাধ।