সহকারি জজ পরিচয়ে অনার্স প্রথম বর্ষের ছাত্রীকে বিয়ের খায়েশ!


Published: 2019-04-20 22:16:25 BdST, Updated: 2019-05-23 11:23:12 BdST

ময়মনসিংহ লাইভ: রাশেদুল ইসলাম সোহাগ। পরিচয় দিয়ে বেড়ান তিনি সহকারী জজ। ওই পরিচয়েই তিনি বিয়ে করতে এসেছিলেন ময়মনসিংহের ভালুকায়। এসেই ধরা পড়লেন তিনি আসলে জজ নন। ভূয়া পরিচয়ে প্রতারণা করছেন তিনি। পরে ওই যুবককে পুলিশের হাতে তুলে দেয়া হয়েছে। ভালুকা উপজেলার পাড়াগাঁও এলাকায় শুক্রবার রাতে এমন ঘটনা ঘটে। এঘটনায় একটি মামলাও করা হয়েছে।

মামলা সূত্রে জানা যায়, গাজীপুর জেলার কাপাসিয়া উপজেলার ভেরারচালা গ্রামের আব্দুল খালেকের ছেলে রাশেদুল ইসলাম সোহাগ জজ পরিচয় দিয়ে প্রতারণা করে আসছেন। সোহাগ তার বড় ভাই আসাদুজ্জামান ও ভাবিকে নিয়ে ঘটকের মাধ্যমে ভালুকার পাড়াগাঁও গ্রামে অনার্স প্রথম বর্ষের এক ছাত্রীকে বিয়ে করতে আসে।

রাশেদুল ইসলাম সোহাগ নিজের নাম গোপন করে রাসেল মাহমুদ উল্লে­খ করে সাতক্ষীরা জেলার সহকারি জজ পরিচয় দেয়। এতে কনে পক্ষের লোকজনের সন্দেহ হলে একই নামের সাতক্ষীরা জেলার সহকারি জজ রাসেল মাহমুদের মোবাইল নাম্বার সংগ্রহ করেন। পরে তার নম্বরে যোগযোগ করেন। এতে সোহাগ যে ভুয়া জজ বের হয়ে আসে।

এর আগেও ২০১৮ সালে রাশেদুল ইসলাম সোহাগ জজ পরিচয় দিয়ে কাপাসিয়া থানায় গ্রেফতার হন বলে পুলিশ সূত্রে জানা গেছে। বিষয়টি বুঝতে পেরে রাশেদুল ইসলাম সোহাগ মোটরসাইকেল যোগে কনের বাড়ি থেকে পালিয়ে যাওয়ার চেষ্টা করে। বিষয়টি টের পেয়ে ওই ছাত্রীর চাচা সোহাগকে ধরে নিয়ে বাড়িতে আটকে রাখে। পরে স্থানীয় চেয়ারম্যান তোফায়েল আহম্মেদ বাচ্চু ভালুকা মডেল থানায় খবর দিলে পুলিশ তাকে আটক করে থানায় নিয়ে আসে।

এ ঘটনায় ভালুকা মডেল থানার এসআই জহুরুল হক বাদী হয়ে প্রতারণার অভিযোগে একটি মামলা করেন। শনিবার সোহাগকে আদালতে প্রেরণ করা হয়েছে। মডেল থানার ওসি ফিরোজ তালুকদার ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করেছেন।


ঢাকা, ২০ এপ্রিল (ক্যাম্পাসলাইভ২৪.কম)//এমআই

ক্যাম্পাসলাইভ২৪ডটকম-এ (campuslive24.com) প্রচারিত/প্রকাশিত যে কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা আইনত অপরাধ।