নবীন-প্রবীণের প্রাণ উচ্ছ্বাসে একাকার চবি


Published: 2020-03-05 20:17:29 BdST, Updated: 2020-04-01 13:06:58 BdST

চবি লাইভঃ একজনের বয়স সত্তর তো অন্যজনের বয়স ৩৫। কেউ বা সদ্য ভর্তি হওয়া তরুণ। সকলেই গোল হয়ে গানের তালে নাচানাচি করছেন। অনেকে দেখা গিয়েছে পুরাতন বন্ধুদের পেয়ে খোশগল্পে মেতে উঠেছেন। আবার কেউ এক সময়ের শাটল মাতিয়ে রাখা গানের গলা বাজিয়ে নিচ্ছেন। বয়স কোন বাধা হয়নি নবীন-প্রবীনের এমন উচ্ছ্বাসে। এরকম অসংখ্য প্রাণোচ্ছল চিত্র দেখা গিয়েছে চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয় রাজনীতি বিজ্ঞান বিভাগের সুবর্ণ জয়ন্তী উৎসবে।

বর্ণিল আয়োজনে দুইদিন ব্যাপি (৫-৬ মার্চ) ৫০ বছর পূর্তি উৎসবের ছিলো প্রথম দিন। শিক্ষক এবং প্রাক্তন ও বর্তমান শিক্ষার্থীদের অংশগ্রহণে বর্ণাঢ্য র‍্যালি ক্যাম্পাস প্রদক্ষিণ করে। র‍্যালি শেষে চবি শহীদ আবদুর রব হল মাঠে বেলুন-ফেস্টুন উড়িয়ে সুবর্ণ জয়ন্তী উৎসবের উদ্ভোধন করেন বিভাগের প্রথম ব্যাচের শিক্ষার্থীরা।

অনুষ্ঠানে স্বাগত বক্তব্য ও প্রধানমন্ত্রীর বাণী পাঠ করেন চবি সমাজ বিজ্ঞান অনুষদের ডিন অনুষ্ঠান উদযাপন কমিটির সদস্য-সচিব প্রফেসর ড. মুস্তাফিজুর রহমান ছিদ্দিকী। এতে শুভেচ্ছা বক্তব্য এবং মহামান্য রাষ্ট্রপতির বাণী পাঠ করেন বিভাগের প্রফেসর ড. ভূঁইয়া মোঃ মনোয়ার কবির।

ভিসি তাঁর ভাষণে সুবর্ণ জয়ন্তী অনুষ্ঠানে উপস্থিত সকলকে জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্মশতবার্ষিকীর শুভেচ্ছা জানিয়ে বলেন দেশের দক্ষিণ-পূর্বাঅঞ্চলের অন্যতম উচ্চ শিক্ষা ও গবেষণা প্রতিষ্ঠান এই বিশ্ববিদ্যালয়ের রাজনীতি বিজ্ঞান বিভাগের নবীন প্রবীণ শিক্ষার্থীরা জ্ঞান বিতরণের মাধ্যমে দেশে মানবসম্পদ উৎপাদনে অসামান্য ভূমিকা রেখে চলেছেন। একইসাথে এই বিভাগের শিক্ষক-গবেষক, শিক্ষার্থীবৃন্দ দেশের রাজনীতি, সমাজনীতি, অর্থনীতিসহ বিভিন্ন ক্ষেত্রে দেশের উন্নয়ন-অগ্রগতিতে অবদান রাখছেন।

এ প্রাচীন বিভাগের প্রাক্তন শিক্ষার্থীদের স্বীয় মেধা, প্রজ্ঞা ও অভিজ্ঞতা দিয়ে দেশ-বিদেশের বিভিন্ন সরকারী-বেসরকারী প্রতিষ্ঠানে উচ্চপদে সমাসীন থেকে এ বিভাগ তথা চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের ভাবমূর্তি উজ্জ্বল করছেন। ভিসি বিভাগের প্রাক্তন শিক্ষার্থীদের স্ব স্ব অবস্থান থেকে বিশ্ববিদ্যালয়ের চলমান উন্নয়ন-অগ্রগতিতে ভূমিকা রাখার আহবান জানান।

প্রাক্তন শিক্ষার্থী মোমতাহিনা তাজনিন স্বামী-সন্তান নিয়ে এসেছিলেন। তিনি বলেন, চবি রাজনীতি বিজ্ঞান বিভাগ শুধু একটি বিভাগই না। এটি একটি পরিবার। বাস্তবতায় জীবনের সাথে ব্যাস্ত হয়ে গেলেও এই পরিবার কে ভুলে যাওয়া কখনোই সম্ভব না। এখানে এসে পুরাতন অনেক বন্ধুর সাথে দেখা পেয়েছি। অনেকদিন পর মনে হচ্ছে পুরাতন দিনগুলোতে আবার ফিরে গিয়েছি।

বিকালে অনুষ্ঠিত সাংস্কৃতিক উৎসবে গানের সাথে সাথে আবগ আক্রান্ত হয়ে পড়েন অনেকে।যেন মূহুর্তগুলোকে শেষ করতে ইচ্ছুক না কেউই।

আগামীকাল সুবর্ণ জয়ন্তী উৎসবের দ্বিতীয় দিন নগরীর বহদ্দারহাট স্বাধীনতা কমপ্লেক্সে উদযাপিত হবে।

ঢাকা, ০৫ মার্চ (ক্যাম্পাসলাইভ২৪.কম)//এমজেড

ক্যাম্পাসলাইভ২৪ডটকম-এ (campuslive24.com) প্রচারিত/প্রকাশিত যে কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা আইনত অপরাধ।