অসুস্থ মাকে নিয়ে বাড়ি ফেরা হলো না সুজনের


Published: 2020-02-15 01:30:04 BdST, Updated: 2020-04-10 01:47:07 BdST

আবু নাঈম, কুবিঃ অসুস্থ মা ঢাকা থেকে চিকিৎসা শেষে বাড়ি ফিরছেন। মাকে এগিয়ে আনতে গিয়েছিলে সেই সুজন। মা বাড়িতে আসলেন ঠিকই। কিন্তু সেই সুজন চলে গেলেন না ফেরার দেশে। তিনি আর কোন দিন ক্যাম্পাসে আড্ডার আসরে বসবেন না। কাউকে বলবেন না বন্ধু এই নোটটা লাগবে, বন্ধু ফটোকপি টা দে।

ঢাকাগামী এনা পরিবহনের দ্রুতগতির একটি বাসের ধাক্কায় সুজনের সকল স্বপ্ন কেড়ে নিল। তার মা- বাবার চাওয়া পাওয়ার সব কিছুই যেন মুহুর্তেই তছনছ করে দিয়ে গেল এনার একটি ঘাতক বাস। সুজনও বাড়িতে ফিরলেন, তবে জীবন্ত নয় মৃত লাশ হয়ে। সুজনের বাবার অনেক স্বপ্ন ছিলো তাকে অনেক। সেই প্রায়ই করতেন তার মা। প্রসঙ্গত তার বাবা আগেই চলে গেছেন পরপারে।

এই নির্মম ঘটনায় বুড়িচংয়ের রূপদ্দি এলাকায় শোকের ছায়া নেমে এসেছে। স্বজন এমনকি বন্ধু-বন্ধবরাও চোখের পানি ধরে রাখতে পারছেন না। শুক্রবার (১৪ই ফেব্রুয়ারি) দুপুরে ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কের বুড়িচং উপজেলার কাবিলা নামক স্থানে রাস্তা পারাপারের সময় এ দুর্ঘটনা ঘটে।

নিহত সুজন আহম্মেদ কুমিল্লা বিশ্ববিদ্যালয়ের একাউন্টিং এন্ড ইনফরমেশন সিস্টেমস্ বিভাগের শেষ বর্ষের শিক্ষার্থী। তিনি কুমিল্লার বুড়িচংয়ের রূপদ্দি গ্রামের প্রয়াত রহমত আলীর ছেলে।

স্থানীয় সূত্র জানায়, শুক্রবার দুপুরে রাজধানী ঢাকা থেকে চিকিৎসা শেষে সুজনের মা বাড়ি ফিরছিলেন। মাকে এগিয়ে আনতে বুড়িচংয়ের কাবিলা বাসস্টেশনে যায় সুজন। দুপুর আড়াইটার দিকে বাস থেকে নামার পর মাকে নিয়ে অটোরিকশাযোগে বাড়ির উদ্দেশ্যে রওনা দেন তারা।

তাদের বহনকারী অটোরিকশাটি ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়ক পার হওয়ার সময় ঢাকাগামী এনা পরিবহনের দ্রুতগতির একটি বাস এটিকে ধাক্কা দেয়। এতে অটোরিকশাটি দুমড়ে-মুচড়ে যায় এবং বাসটি নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে খাদে পড়ে।

এ সময় ঘটনাস্থলেই প্রাণ হারায় অটোরিকশার যাত্রী সুজন। আহত হন অটোরিকশা ও বাসের অন্তত ১০ যাত্রী। আহতদের উদ্ধার করে পার্শ্ববর্তী হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে। দুর্ঘটনাকবলিত অটোরিকশা ও বাসটি উদ্ধার করেছে হাইওয়ে পুলিশ।

কুমিল্লার বুড়িচং থানার ওসি মোজাম্মেল হক জানান, র্দুঘটনার সাথে সাথে আমরা ঘটনাস্থলে যাই। লাশ উদ্ধার করে বর্তমানে তার বাড়িতে পাঠানো হয়েছে।’

ময়নামতি হাইওয়ে ক্রসিং থানার ওসি মো. আলমগীর হোসেন জানান, দুর্ঘটনার পর পুলিশ ঘটনাস্থলে পৌঁছানোর পূর্বেই স্বজনরা মরদেহ বাড়ি নিয়ে যায়। আমরা আহতদের উদ্ধার করে বিভিন্ন হাসপাতালে পাঠিয়েছি। দুর্ঘটনাকবলিত বাস ও অটোরিকশা ফাঁড়িতে নিয়ে আসা হয়েছে।

এই নির্মম ঘটনায় বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাসে শোকের ছায়া নেমেছে। তার সতীর্থরা ঘতকদের বিচার দাবী করেছেন।

ঢাকা, ১৪ ফেব্রুয়ারি (ক্যাম্পাসলাইভ২৪.কম)//বিএসসি

ক্যাম্পাসলাইভ২৪ডটকম-এ (campuslive24.com) প্রচারিত/প্রকাশিত যে কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা আইনত অপরাধ।