ছাত্রলীগকে হটিয়ে শাবিতে দিনভর কর্মসূচি


Published: 2018-04-09 21:18:58 BdST, Updated: 2018-07-23 03:57:57 BdST

শাবি লাইভ: শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ে ছাত্রলীগকে হটিয়ে দিনভর বিক্ষোভ কর্মসূচি পালন করেছেন শিক্ষার্থীরা। দিনের প্রথমভাগে শিক্ষার্থীদের হুমকি ধামকি দিয়ে ধর্মঘট কর্মসূচি থেকে বিরত করা গেলেও সময়ের সাথে সাথে পিছু হটে শাবি শাখা ছাত্রলীগ। অন্যদিকে ক্লাস পরীক্ষা বর্জন করে কোটা সংস্কারের আন্দোলনে শিক্ষার্থীরা যোগ দেয়ায় বিশ্ববিদ্যালয়টিতে স্থবিরতা লক্ষ্য করা গেছে।

ক্যাম্পাস সূত্রে জানা যায়, সোমবার সকাল সাতটায় বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রধান ফটকে অবস্থান নেয়ার কথা ছিল আন্দোলনকারীদের। তবে ভোর ছয়টা থেকেই শাহপরান হল ও বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান হলের সামনে শাখা ছাত্রলীগ নেতারা অবস্থান নেন।

এসময় বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রধান ফটকের উদ্দেশ্যে যাতায়াতকারী প্রত্যেককে তারা জিজ্ঞাসাবাদ করেন। বেশ কয়েকজনের কাছ থেকে ব্যনারও কেড়ে নেয়ার অভিযোগ রয়েছে। শিক্ষার্থী ও সিলেট বিভাগীয় কোটা সংস্কার আন্দোলনের সমন্বয়ক নাসির উদ্দিনকেও শাহপরান হল থেকে বেরুতে দেননি ছাত্রলীগের নেতাকর্মীরা।

এক পর্যায়ে তার ফোনও রেখে দেন তারা। হলে থাকেন এবং কোটা সংস্কার আন্দোলনকে সমর্থন করেন এমন শিক্ষার্থীদেরকেও জোর করে ভয়ভীতি দেখিয়ে প্রধান ফটকে আসতে বাঁধা দেয়া হয় বলে অভিযোগ রয়েছে। পরবর্তীতে সকাল সাড়ে সাতটার দিকে কয়েকজন শিক্ষার্থী প্ল্যাকার্ড নিয়ে প্রধান ফটকে অবস্থান নিলে তাদেরকে ফটক থেকে উঠিয়ে দেন শাখা ছাত্রলীগের সহ-সভাপতি মুস্তাকিম আহমেদ মোস্তাক, তারিকুল ইসলাম, সাধারণ সম্পাদক ইমরান খান।

পরে ভারপ্রাপ্ত সভাপতি রুহুল আমিন এসে নাম ধরে ধমকিয়ে আন্দোলনরত শিক্ষার্থীদেরকে সেখান থেকে চলে যেতে বলেন। সকাল ছয়টা থেকে এ ঘটনা ঘটলেও সেখানে নয়টা পযন্ত বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনের কোনো শিক্ষক আসেননি। পরে নয়টার দিকে প্রক্টরিয়াল বডির সদস্যরা আসেন। বেলা দশটার দিকে বিভিন্ন বিভাগের ক্লাস পরীক্ষা বর্জন করে প্রধান ফটকে জমায়েত হন শিক্ষার্থীরা।

দুপুর ড়েরটায় শিক্ষার্থীরা প্রধান ফটক থেকে একটি বিক্ষোভ মিছিল নিয়ে ক্যাম্পাস প্রদক্ষিণ করে আবার ফটকে ফিরে গিয়ে অবস্থান নেন শিক্ষার্থীরা করে। মিছিলে দুই সহস্রাধিক শিক্ষার্থী অংশ নেন।

এসময় শিক্ষার্থীরা ‘মুজিবের বাংলায়, বৈষম্যের স্থান নাই’, ‘আমার ভাইয়ের রক্ত, বৃথা যেতে বে না’, ‘কোটা ১০ শতাংশে নামিয়ে আন, আনতে হবে’, ‘কোটা সংস্কার কর, করতে হবে’ সহ বিভিন্ন ধরনের স্লোগান দিতে থাকেন। পরে কেন্দ্রের ঘোষণা অনুযায়ী কর্মসূচি ঘোষিত হবে বলে দিনের কর্মসূচি শেষ করেন।

শাবি ছাত্রলীগের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি রুহুল আমিন জানান, ক্যাম্পাসে সহিংস কার্যক্রম যাতে না হয় সেজন্য আমরা গেইট থেকে তাদের সরিয়ে দিয়েছিলাম।

 


ঢাকা, ০৯ এপ্রিল (ক্যাম্পাসলাইভ২৪.কম)//এমআই

ক্যাম্পাসলাইভ২৪ডটকম-এ (campuslive24.com) প্রচারিত/প্রকাশিত যে কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা আইনত অপরাধ।