ববিতে বাংলা বিভাগে তালা, শিক্ষার্থীদের বিক্ষোভ


Published: 2019-07-14 20:03:43 BdST, Updated: 2019-08-26 00:45:27 BdST

ববি লাইভ: বরিশাল বিশ্ববিদ্যালয়ের (ববি) বাংলা বিভাগের অফিস রুমে তালা লাগিয়ে বিক্ষোভ করেছে শিক্ষার্থীরা। রবিবার দুপুর ১২টায় বিক্ষোভকারী শিক্ষার্থীরা বিভাগের সামনে প্ল্যাকার্ড, ফেস্টুন নিয়ে অবস্থান করে। গত মে মাসে বাংলা বিভাগের চেয়ারম্যানের প্রতি সব শিক্ষকদের অনাস্থা আনার পর আবার নতুন করে অচল অবস্থা তৈরি হয়েছে বরিশাল বিশ্ববিদ্যালয়ের বাংলা বিভাগ।

শিক্ষার্থীরা জানান গত ২৫ মে ৭ম সেমিস্টারের পরীক্ষা শেষ হলেও বিভিন্ন জটিলতা ও শিক্ষকদের অন্তর্কোন্দলের জন্য ৮ ম সেমিস্টারের ক্লাস শুরু না করায় অফিস রুমে তালা লাগিয়ে দিয়েছেন তারা। ২০১৪-১৫ সেশনে জানুয়ারীতে অনার্স শেষ হওয়ার কথা থাকলেও এখন পর্যন্ত ৮ম সেমিস্টারের ক্লাস শুরু হয়নি। আটকে আছে ২০১৫-১৬ শিক্ষাবর্ষের ৬ষ্ঠ সেমিস্টারের ফাইনাল পরীক্ষা, ক্লাস শুরু হচ্ছে না ২০১৬-১৭ শিক্ষাবর্ষের ৩য় বর্ষ ১ম সেমিস্টা্রের। যার ফলে ক্ষুব্ধ শিক্ষার্থীরা ক্লাস, পরীক্ষার দাবিতে বিভাগের সামনে অবস্থান নিয়ে বিক্ষোভ করেন।

শিক্ষার্থী তাজিবুল ইসলাম বলেন, শিক্ষকদের অন্তর্কোন্দলের জন্য অভিযোগ আর পালটা অভিযোগ শুনতে হচ্ছে তাদের প্রত্যেকের কাছে গিয়ে।দ্বারে দ্বারে ভিক্ষা করার মত একটা অবস্থা। শিক্ষকদের ইগোর জন্য সেশনজটে পরছি আমরা।

বাংলা বিভাগের চেয়ারম্যান অ্যাসিস্ট্যান্ট প্রফেসর মোহসিনা হোসাইন ক্যাম্পাসলাইভকে জানান, শিক্ষার্থীদের চাওয়া যৌক্তিক ।ক্লাস শুরু করা বিভাগের দায়িত্ব। ২০১৪-১৫ ও ২০১৬-১৭ শিক্ষাবর্ষের ক্লাস শুরু করতে কোর্স বণ্টন করার জন্য গত ২ জুলাই একাডেমিক কমিটির মিটিং আহ্বান করা হয় কিন্তু বিভাগের কোন শিক্ষক সেই মিটিংয়ে উপস্থিত হয়নি।এবং শিক্ষকরা কোর্স সিলেক্ট না করায় ক্লাস শুরু করা যায়নি।

এসময় তিনি আরো জানান, শিক্ষকদের অসহযোগিতার জন্য ভোগান্তিতে পড়েছে শিক্ষার্থীরা। ছাত্রদের দ্রুত ক্লাস নেয়ার জন্য আমি প্রান পনে চেষ্টা করে যাচ্ছি।শিক্ষকদের প্রশাসনিক সব কাজ চলছে কিন্তু ক্লাস নিতে চাচ্ছেনা কেন? ছাত্রদের ক্লাস আটকে দিয়ে তারা আমার সাথে ক্ষোভ প্রকাশ করছে ।এ দায় তাদের নিতে হবে ।

বাংলা বিভাগের অ্যাসিস্ট্যান্ট প্রফেসর সঞ্জয় কুমার সরকার বলেন, চেয়ারম্যান একটা মিটিং কল করছে ৭ জনের কেউ যাইনি এটা তার ব্যর্থতা। আমরা তার প্রতি অনাস্থা এনেছি তাই প্রসাসনিক কোন সিদ্ধান্ত না আসা পর্যন্ত তার সাথে কোন কাজ করবো না। তার অযোগ্যতা, ব্যর্থতা, সমন্বয়হীনতার জন্য এমন পরিস্থিতি তৈরি হয়েছে। শিক্ষার্থীরা ক্ষতির শিকার হচ্ছে তাদের ক্লাস হওয়া দরকার। এ ব্যর্থতার দায়ভার তার।

এ বিষয়ে কলা ও মানবিক অনুষদের ডিন প্রফেসর ড. মুহাম্মদ মুহাসিন উদ্দিন ক্যাম্পাসলাইভকে জানান, বাংলা বিভাগের শিক্ষকদের অন্তরকোন্দলের বিষয়টি আমরা জেনেছি। আগামীকাল ৩টায় সকলে মিলে মিটিং করে সিদ্ধান্ত নিব।


ঢাকা, ১৪ জুলাই (ক্যাম্পাসলাইভ২৪কম)//এমআই

ক্যাম্পাসলাইভ২৪ডটকম-এ (campuslive24.com) প্রচারিত/প্রকাশিত যে কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা আইনত অপরাধ।