চুয়েট ভর্তি: আবেদন করবেন যেভাবে, সিট বাড়লো ১৩০টি!


Published: 2018-09-19 14:05:49 BdST, Updated: 2018-12-13 19:51:54 BdST

চুয়েট লাইভ: চট্টগ্রাম প্রকৌশল ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ে (চুয়েট) চারটি অনুষদের ১০টি বিভাগে স্নাতক কোর্সে ভর্তি আবেদন করতে বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ করেছে বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন। বিজ্ঞপ্তিতে ৮৩০ আসনের বিপরীতে ২০১৮-১৯ শিক্ষাবর্ষে ভর্তিচ্ছু প্রার্থীদের নিকট থেকে আবেদন আহবান করা হয়।

ভর্তিচ্ছু প্রার্থীদের ভর্তি পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হবে আগামী ০২ নভেম্বর, শুক্রবার। এবার পূর্বের ৭০০ আসনের সাথে মেকানিক্যাল ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগে ৫০টি, ইলেকট্রিক্যাল এন্ড ইলেকট্রনিক ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগে ৫০টি এবং ইলেকট্রনিক্স এন্ড টেলিকমিউনিকেশন ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগে ৩০টিসহ মোট ১৩০ টি আসন বৃদ্ধি করা হয়েছে।

বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়েছে, ১১টি উপজাতীয় কোটাসহ সর্বমোট ৮৪১ আসনে ছাত্র-ছাত্রী ভর্তি করা হবে। শুক্রবার সকাল ১০টা থেকে বেলা ১টা পর্যন্ত (সময় ৩ ঘণ্টা) লিখিত পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হবে। একই দিন বিকাল ২.৩০ টা থেকে ৪.৩০ টা পর্যন্ত (সময় ২ ঘণ্টা) মুক্তহস্ত অংকন পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হবে বলে জানানো হয়েছে।

বিশ্ববিদ্যালয় সূত্রে জানা গেছে, ভর্তির জন্য অনলাইনে আবেদন আগামী ২৪ সেপ্টেম্বর থেকে শুরু হয়ে চলবে আগামী ০৭ অক্টোবর পর্যন্ত। এ-লেভেল এবং বিদেশী শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের প্রার্থীদের আবেদনপত্র গ্রহণ করার সময় ২৪ সেপ্টেম্বর থেকে ০৭ অক্টোবর প্রতিদিন সকাল ৯.০০ টা হতে বিকাল ৪.৩০ টা পর্যন্ত।

মোবাইল ব্যাংকিং এর মাধ্যমে আবেদনের টাকা জমা দেওয়া যাবে। ভর্তি পরীক্ষায় অংশগ্রহণের যোগ্য প্রার্থীদের রোলসহ নামের তালিকা প্রকাশ করা হবে ১৮ অক্টোবর। এক্ষেত্রে শুধুমাত্র লিখিত পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হবে। ভর্তি পরীক্ষায় MCQ পদ্ধতির কোন প্রশ্ন থাকবে না বলেও জানা গেছে উক্ত বিজ্ঞপ্তিতে।

বিশ্ববিদ্যালয়ের সূত্রে জানা যায়, বর্ধিত আসনসহ বিভাগসমূহ হচ্ছে, সিভিল ইঞ্জিনিয়ারিং (১৩০ টি আসন), মেকানিক্যাল ইঞ্জিনিয়ারিং (১৮০ আসন), কম্পিউটার সায়েন্স এন্ড ইঞ্জিনিয়ারিং (১৩০ আসন), ইলেকট্রিক্যাল এন্ড ইলেকট্রনিক ইঞ্জিনিয়ারিং (১৮০ আসন), ইলেকট্রনিক্স এন্ড টেলিকমিউনিকেশন ইঞ্জিনিয়ারিং (৬০ আসন), পেট্রোলিয়াম এন্ড মাইনিং ইঞ্জিনিয়ারিং (৩০ আসন), ওয়াটার রিসোর্সেস ইঞ্জিনিয়ারিং (৩০ আসন), মেকাট্রনিক্স এন্ড ইন্ডাস্ট্রিয়াল ইঞ্জিনিয়ারিং (৩০ আসন), আর্কিটেকচার (৩০ আসন), আরবান এন্ড রিজিওনাল প্ল্যানিং (৩০ আসন)।

এছাড়াও রাখাইন সম্প্রদায়ের জন্য ০১টি, পার্বত্য চট্টগ্রাম ও অন্যান্য জেলার উপজাতীয়দের জন্য ১০টি সহ অতিরিক্ত ১১টি আসন সংরক্ষিত আছে। ভর্তির জন্য অন্য কোন ধরনের আসন সংরক্ষিত নেই।

ভর্তি পরীক্ষায় অংশগ্রহণের যোগ্যতা:
প্রার্থীকে বাংলাদেশের নাগরিক হতে হবে, প্রার্থীকে ২০১৮ ইং সালে উচ্চ মাধ্যমিক বা তার সমমানের পরীক্ষায় পাশ হতে হবে অথবা ২০১৭ ইং সালের সেপ্টেম্বরের পরে ‘A’ লেভেল সার্টিফিকেট প্রাপ্ত হতে হবে।

প্রার্থীকে বাংলাদেশের যে কোন মাধ্যমিক ও উচ্চ মাধ্যমিক শিক্ষা বোর্ড/মাদ্রাসা শিক্ষা বোর্ড/কারিগরি শিক্ষা বোর্ড থেকে মাধ্যমিক বা সমমানের পরীক্ষায় কমপক্ষে জিপিএ ৪.০০ পেয়ে পাশ হতে হবে অথবা সমমানের পরীক্ষায় কমপক্ষে সমতুল্য গ্রেড পেয়ে পাশ হতে হবে।

প্রার্থীকে বাংলাদেশের যে কোন মাধ্যমিক ও উচ্চ মাধ্যমিক শিক্ষা বোর্ড/মাদ্রাসা শিক্ষা বোর্ড/কারিগরি শিক্ষা বোর্ড থেকে উচ্চ মাধ্যমিক/আলীম/সমমানের পরীক্ষায় গণিত, পদার্থ বিজ্ঞান, রসায়ন বিষয়ের প্রত্যেকটিতে আলাদাভাবে কমপক্ষে গ্রেড পয়েন্ট ৩.৫০ ও ইংরেজি বিষয়ে কমপক্ষে গ্রেড পয়েন্ট ৩.০০ পেয়ে পাশ করতে হবে। গণিত, পদার্থ বিজ্ঞান, রসায়ন ও ইংরেজীতে মোট গ্রেড পয়েন্ট কমপক্ষে ১৭.৫০ পেতে হবে।

ইংরেজী মাধ্যম/বিদেশী শিক্ষা বোর্ড থেকে সমমানের পরীক্ষায় উক্ত বিষয়সমূহে কমপক্ষে সমতুল্য গ্রেড পেয়ে পাশ হতে হবে। প্রার্থী যদি GCE ‘O’ লেভেল এবং ‘A’ লেভেল পাশ করে থাকলে তার ক্ষেত্রে ভর্তি পরীক্ষায় অংশগ্রহণের জন্য GCE ‘O’ লেভেল পরীক্ষায় গণিত, পদার্থ বিজ্ঞান, রসায়ন ও ইংরেজীসহ কমপক্ষে পাঁচটি পেপারে নূন্যতম ‘B’ গ্রেড পেয়ে পাশ হতে হবে। GCE ‘A’ লেভেল পরীক্ষায় পদার্থ বিজ্ঞান, রসায়ন ও গণিতে পৃথক পৃথকভাবে কমপক্ষে ‘B’ পেয়ে পাশ হতে হবে।

অনলাইনে ভর্তির আবেদন:
ভর্তি পরীক্ষায় অংশগ্রহণের জন্য আবেদন ফরম কেবল মাত্র অনলাইনে পূরণ করা যাবে। আবেদন ফি ডাচ্-বাংলা ব্যাংকের মোবাইল ব্যাংকিংয়ের মাধ্যমে প্রদান করতে হবে। কোন ছাপানো ফরম বিক্রয় করা হবে না এবং ডাচ্-বাংলা মোবাইল ব্যাংকিং ব্যতীত অন্য কোন মাধ্যমে আবেদন ফি গ্রহণযোগ্য হবে না।

সকল আবেদনকারীর মধ্য থেকে HSC তে গণিত, পদার্থ বিজ্ঞান, রসায়ন এবং ইংরেজীতে প্রাপ্ত মোট গ্রেড পয়েন্টের ভিত্তিতে প্রথম ১০,০০০ (দশ হাজার) জনকে ভর্তি পরীক্ষার জন্য নির্বাচিত ঘোষণা করা হবে। তবে, ১০,০০০ (দশ হাজার) তম স্থানে একাধিক প্রার্থী থাকলে ক্রমানুসারে গণিত, পদার্থ বিজ্ঞান, রসায়ন এবং ইংরেজি বিষয়ের HSC তে প্রাপ্ত নম্বরের ভিত্তিতে ভর্তি পরীক্ষার জন্য যোগ্য প্রার্থী নির্বাচন করা হবে। সেক্ষেত্রে HSC তে গণিত, পদার্থ বিজ্ঞান, রসায়ন এবং ইংরেজিতে একই নম্বর প্রাপ্ত ১০,০০০ (দশ হাজার)-তম স্থানের সকল প্রার্থী ভর্তি পরীক্ষায় অংশগ্রহণের সুযোগ পাবে।

আবেদন ফি:
গ্রুপ-ক/KA (ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগসমূহ এবং নগর ও অঞ্চল পরিকল্পনা বিভাগ) এর জন্য ৯০০/- (সার্ভিস চার্জ বাদে) টাকা এবং গ্রুপ-খ/ KHA (ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগসমূহ, নগর ও অঞ্চল পরিকল্পনা বিভাগ এবং স্থাপত্য বিভাগ) এর জন্য ১,০০০/- (সার্ভিস চার্জ বাদে) টাকা।


ভর্তি নির্দেশিকা :
সকল পরীক্ষার্থী চুয়েট ওয়েবসাইট http://web.cuet.ac.bd/admission2017 A_ev http://www.cuet.ac.bd/admission হতে ভর্তি নির্দেশিকা ২০১৮-১৯ ডাউনলোড করে নিতে পারবে।

ভর্তি নির্দেশিকায় উল্লিখিত নিয়মাবলী ছাত্র-ছাত্রীদেরকে অনুসরণ করতে হবে। ভর্তি বিজ্ঞপ্তি/ভর্তি নির্দেশিকায় উল্লেখ নেই, ভর্তি সংক্রান্ত এমন কোন তথ্য জানতে হলে রেজিস্ট্রার অফিসের উল্লিখিত মোবাইল নম্বরে যোগাযোগ করতে পরবেন।

ভর্তি সংক্রান্ত সাধারণ যোগাযোগের জন্য রেজিস্ট্রার অফিসের নিম্নের যে কোন নম্বরে অফিস সময়ে যোগাযোগ করা যেতে পারে। মোবাইল নম্বরগুলো হচ্ছে, ০১৭৫৯১২৩১৪৮ এবং ০১৭৫৯১২৩১০৩।

এছাড়া ভর্তির তারিখ, ওরিয়েন্টেশন ও ক্লাশ শুরুর তারিখ ও সময় এবং ভর্তি সংক্রান্ত অন্যান্য বিজ্ঞপ্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের নোটিশ বোর্ড এবং ওয়েবসাইট http://web.cuet.ac.bd/admission2018 অথবা cuet.ac.bd/admission মারফত জানানো হবে। এর জন্য পত্রিকায় বিজ্ঞপ্তি বা ব্যক্তিগত চিঠি দেয়া হবে না বলে জানিয়েছেন বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন।

 

 

 

ঢাকা, ১৯ সেপ্টেম্বর (ক্যাম্পাসলাইভ২৪.কম)//এমআই

ক্যাম্পাসলাইভ২৪ডটকম-এ (campuslive24.com) প্রচারিত/প্রকাশিত যে কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা আইনত অপরাধ।